শুক্রবার, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০

'ব' 'B' দিয়ে হিন্দু মেয়ে শিশুর নাম

'ব' 'B' দিয়ে হিন্দু মেয়ে শিশুর নাম

Hindu Baby Name With "B" (Hindu Girls Name)



বনলতাঃ
বন্য লতা, জিবনানন্দ দাশের বনলতা সেন কবিতার চরিত্র
বনিতাঃ মহিলা, নারী, রমনী, ভার্যা, পত্নী, প্রিয়া, প্রেয়সী
বন্দনাঃ পুজো করা, প্রার্থনা, আরাধনা, স্তব, স্তুতী

অর্থগত বা ধর্মীয় গুরুত্ব বিবেচনায় আপনার মেয়ের জন্য "বন্দনা" নামটি খুবই সুন্দর একটি নাম
বর্তিকাঃ বাতি, প্রদীপ, প্রদীপের সলিতা, তুলি, বার্নিস

প্রদিপ যেমন নিজের আলোয় অন্ধকার দূর করে পৃথিবীকে আলোকিত করে, ঠিক তেমনি আপনার কন্যা পৃথিবীর সকল অজ্ঞতার অন্ধকার দূর করে পৃথিবীকে আলোকিত করবে এই প্রার্থনায় আপনার মেয়ের নাম "বর্তিকা" রাখতে পারেন। এটি খুবই সুন্দর এবং আধুনিক নাম
বর্ষাঃ ষড় ঋতুর ২য় ঋতু, বৃষ্টি

বর্ষা যেমন সমস্ত ধুলো ময়লা আবর্জনা ধুয়ে মুছে প্রকৃতিকে পরিস্কার করে আপনার কন্যাও তেমনি এই পৃথিবীর সমস্ত জঞ্জাল দূর করে এক নতুন পৃথিবীর সূচনা করবে এই প্রার্থনা থেকে আপনার মেয়ের নাম রাখতে পারেন "বর্ষা"। এই নামটি সকল ধর্মের লোক পছন্দ করতে পারে।
বসুধারাঃ বিবাহাদি অনুষ্ঠানে দেওয়ালে দেওয়া সাতটি ঘৃতের ধারা
 
হিন্দু পৌরাণিক কাহিনি মতে– একবার দেবতা ও ব্রাহ্মণদের মধ্যে বিবাদ উপস্থিত হলে রাজা উপরিচর দেবতাদের পক্ষ গ্রহণ করেন। এই কারণে ব্রাহ্মণরা তাঁর উপর অসন্তুষ্ট হয়ে অভিশাপ দেন। ফলে ইনি আকাশ ভ্রমণের ক্ষমতা হারান এবং ভূমণ্ডলের একটি গর্তে পতিত হন। এরপর দেবতারা যজ্ঞের হবি থেকে উপরিচরের খাবারের ব্যবস্থা করে দেন। বসুর জন্য প্রদত্ত ঘিয়ের ধারাকেই পরবর্তী সময়ে বসুধারা নামকরণ করা হয়। বর্তমানে এই ধারা প্রাচীরের গায়ে দেওয়ার বিধান রয়েছে।
বসুমতীঃ পৃথিবী
 
বসুমতী হিন্দু পৌরাণিক কাহিনি মতে: পৃথিবীর অন্য নাম বসুমতি। কথিত আছে সুবর্ণ অগ্নির তেজে উৎপন্ন হয়। পৃথিবী এই বসু (সুবর্ণ বা ধন) ধারণ করে আছেন বলে তাঁর নাম হয় বসুমতী।
বাগেশ্রীঃ একট রাগের নাম, বাগেশ্রী উত্তর ভারতীয় সঙ্গীত পদ্ধতিতে কাফি ঠাটের অন্তর্গত রাগ বিশেষ।
বাণীঃ সরস্বতী, কথা, উক্তি, বক্তৃতা, উপদেশপূর্ণ কথা,বাগ্দেবী

দেবী সরস্বতীর আশির্বাদপুষ্ট কন্যার নাম রাখতে পারেন "বাণী"
বিজয়লক্ষ্মীঃ জয়লক্ষ্মী (সংস্কৃত: जय लक्ष्मी, Jaya Lakṣmī), বিজয় প্রদানকারিনী লক্ষ্মী, কেবলমাত্র যুদ্ধক্ষেত্রেই নয় বরং কঠিন সময়ে বাধাবিপত্তি জয় করে সাফল্য অর্জনকারী কন্যার নাম রাখতে পারেন "বিজয়লক্ষ্মী"।
বিজয়াঃ দুর্গার অষ্টশক্তির একটি, যমভার্যা, দুর্গার এক সখী বা বন্যা (জয়া-বিজয়া); দুর্গা প্রতিমা বিসর্জনের দিন, সিদ্ধি; ভাং
বিনায়িকাঃ বিশিষ্ট নায়িকা, নেতৃত্বদান কারিনী
বিনীতাঃ বিনয়ান্বিত
বিপাশাঃ উত্তর ভারতের একটি নদী। ভারতের হিমালয়ের মধ্য হিমাচল প্রদেশে উৎপন্ন হয়ে নদীটি ভারতের পাঞ্জাব প্রদেশে শতদ্রু নদীতে মিশেছে। ৩২৬ খ্রিস্টপূর্বাব্দের আলেকজান্ডার দ্য গ্রেট এর বিজয়ের পূর্ব সীমান্তরেখাটি নির্দিষ্ট করে। এটি অন্যতম একটি নদী যা আলেকজান্ডারের ভারত আক্রমণের অন্তরায় হয়েছিল।
 
নদীর মতো মহান ও সহস্রবর্ষী কন্যার জীবন কামনার আপনার মেয়ের নাম রাখতে পারেন "বিপাশা"।
বিয়াসঃ

১. নদীর নাম
২. কাঠ বিশেষ। এ কাঠ ক্রিকেট খেলার ব্যাট তৈরির উপযোগী। ঘরের আসবাবপত্র ও কৃষিযন্ত্র তৈরিতে ব্যবহৃত হয়। এই গাছের ফল থেকে তুলা সংগ্রহ করা যায়। বিয়াস গাছের রয়েছে নানা ভেষজগুণ। এ গাছের শিকড়, বাকল ও পাতা বিভিন্ন অসুখ নিরাময়ে ব্যবহৃত হয়।
বিভাঃ দীপ্তি, কিরণ, আলোক, সৌন্দর্য
বিভাবরীঃ রাত্রি, নিশা, যামিনী।

আপনার কন্যার জন্ম যদি রাত্রি কালে হয়ে থাকে তবে নাম "বিভাবরী" রাখতে পারেন। বিভাবরী খুবই সুন্দর ও অর্থবহ একটি নাম
বৃতিঃ বরণ, নিয়োগ, প্রার্থনা, আবৃত, বেষ্টনী, পুষ্পের বহিরাবরণ, সবুজবর্ণের আবরণ যা ফুলের পাপড়ি বেষ্ট করে থাকে।
বৃন্দাঃ শ্রীরাধিকার দূতী, তুলসী

ধর্মীয় দিক বিচারে "বৃন্দা" নামটি খুবই অর্থবহ এবং সুন্দর একটি নাম
বৃষ্টিঃ বর্ষা

বর্ষা যেমন সমস্ত ধুলো ময়লা আবর্জনা ধুয়ে মুছে প্রকৃতিকে পরিস্কার করে আপনার কন্যাও তেমনি এই পৃথিবীর সমস্ত জঞ্জাল দূর করে এক নতুন পৃথিবীর সূচনা করবে এই প্রার্থনা থেকে আপনার মেয়ের নাম রাখতে পারেন "বৃষ্টি"। এই নামটি সকল ধর্মের লোক পছন্দ করতে পারে।
বৈরণীঃ দক্ষের স্ত্রী, ইনি ছিলেন প্রজাপতি বীরণের কন্যা

পৌরাণীক নাম হিসাবে "বৈরনী" নামটি খুবই তাতপর্যপূর্ণ
বৈশালীঃ প্রাচীন শহর

বৈশালী ছিল লিচ্ছবির রাজধানী। উল্লেখ্য, খ্রিস্টপূর্ব ৬ষ্ঠ শতাব্দীতে লিচ্ছবি ছিল বজ্জি রাষ্ট্রসংঘের (মহাজনপদ) অন্তর্গত প্রথম প্রজাতন্ত্রগুলির অন্যতম। খ্রিস্টপূর্ব ৫৩৯ অব্দে বৈশালী প্রজাতন্ত্রের কুণ্ডলগ্রামে ২৪তম জৈন তীর্থঙ্কর মহাবীর জন্মগ্রহণ করেছিলেন। এই অঞ্চলটি তাই জৈনদের কাছে একটি পবিত্র তীর্থক্ষেত্র।
ব্রততীঃ লতা, লতায় ঘেরা বাগান




শিশুর নামকরন লক্ষনীয়ঃ 


একটি সুন্দর নাম আপনার সন্তানের সারা জিবনের পরিচয়। তাই একটি শিশুর জন্য একটি সুন্দর ও অর্থবহ নাম নির্বাচন করা অত্যন্ত জরুরী। হিন্দু শিশুদের নাম নির্বাচনের ক্ষেত্রে কিছু বিষয় খেয়াল রাখা অতিব জরুরী। যেমনঃ নামের আদ্যক্ষর, নামের হিন্দু ধর্মীয় অর্থ ও ব্যাখ্যা, বর্তমান সামাজিক প্রেক্ষাপট, ইতিহাসে একই নামে বিক্ষাত ও কুক্ষাত ব্যক্তি বা চরিত্র, নামের বাংলা ও ইংরেজি বানান, শ্রুতি মধুরতা ইত্যাদি। এছাড়াও অনেকেই সন্তানের নাম রাখার ক্ষেত্রে পিতা-মাতার নামের সাথে মিল, পিতা-মাতার নামের আদ্যক্ষরের মিল, বিখ্যাত মানুষের নামের সাথে মিল, আধুনিক নাম নির্বাচন ইত্যাদি বিষয়ে গুরুত্ব দিয়ে থাকেন। অনেকেই সন্তানের নাম রাখার ক্ষেত্রে অপেক্ষাকৃত ছোট ও আধুনিক নাম খুজে থাকেন। 

এখানে মুল কথা হচ্ছে- যে দিক বিবেচনা করে আপনার সন্তানের নাম নির্বাচন করেননা কেন, সকল ক্ষেত্রে উপরে আলোচিত বিষয় গুলো গুরুত্ব দেওয়া উচিত। আপনার খেয়াল-খুশি বা অপরিপক্ক সিদ্ধান্তের কারনে আপনার সন্তান সামাজিক জীবন, শিক্ষা ক্ষেত্র, কর্ম ক্ষেত্রে পদে পদে বিড়ম্বনার শিকার হতে পারে। নামের বানান বা উচ্চারন যদি সরল ও স্বাভাবিক না হয় তবে সৃষ্টি হতে পারে এ ধরনের জটিলতার। আবার, কিছু নাম আছে যা যথেষ্ট অর্থবহ তবুও সমাজে এই শব্দগুলো ব্যাঙ্গাত্ত্বক বা হীন অর্থে ব্যবহৃত হয়ে থাকে।  এ ধরনের নাম পরিহার করাই শ্রেয়। শুভ হোক আপনার সন্তানের ভবিষ্যৎ।